0
আপনার আদরের শিশুকে নিচে উল্লিখিত ৮টি মূল্যবোধর শিক্ষা দিচ্ছেন কি?
আপনার আদরের শিশুকে নিচে উল্লিখিত ৮টি মূল্যবোধর শিক্ষা দিচ্ছেন কি?                       ফটো ও তথ্য সোর্স: www.sayidaty.net
সন্তান সঠিকভাবে লালন পালন করা পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন এবং চ্যালেঞ্জিং একটা কাজ। একটি সন্তানকে সঠিকভাবে লালন পালন করে মানুষ করে তোলা সহজ কোন বিষয় নয়। এরজন্য বাবা-মাকে করতে হয় কত না ত্যাগ স্বীকার। সহ্য করতে হয় শত শত কষ্ট। বাবা-মার ছোট একটি ভুল সন্তানের ক্ষতির কারণ হতে পারে। মূল্যবোধ এবং নৈতিকতা শিক্ষা দেওয়ার উপযুক্ত সময় হল শিশুকাল। শিশু সময়ে একজন শিশুকে যে শিক্ষা দেওয়া হয় সেটি সে সারা জীবন মনে রাখে। ছোটবেলার এই মূল্যবোধগুলো আপনার শিশুকে বড় মনের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে।
১। সততা
যেকোন মূল্যবোধের ভিত্তি হল সততা। আপনার সন্তানকে ছোটবেলা থেকে সততা শিক্ষা দিন। মিথ্যা কোনভাবে গ্রহণযোগ্য নয় এটি এই শিশুকালেই শিক্ষা দিয়ে দিন। এই সময়ে শিশুরা খুব দ্রুত মিথ্যা কথা বলা শিখে থাকে। বকা, মারের হাত থেকে বাঁচার জন্য মিথ্যা বলা শুরু করে। একবার মিথ্যা বলায় অভ্যস্ত হয়ে গেলে, তা থেকে বের হয়ে আসা শিশুর জন্য কষ্টকর। তাই অন্যায় বা ভুলে বকা বা পিটুনি না দিয়ে বুঝিয়ে বলুন। সত্য কথা বলতে সাহায্য করুন।
২। সম্মান
আরেকটি অন্যতম মূল্যবোধ যা শিশুকালে শিক্ষা দেওয়া উচিত তা হল সম্মান। বড়দের সম্মান দেওয়ার শিক্ষাটা ঘর থেকে শুরু করতে হবে। বাবা-মাকে সম্মান করার পাশাপাশি বাসার গৃহকর্মীটিকেও সম্মান করা শেখাতে হবে এই সময়। অনেক সময় বড়দের খারাপ ব্যবহার করা দেখে ছোটরাও গৃহকর্মীর সাথে খারাপ ব্যবহার করে থাকে। তাই গৃহকর্মীর সাথে খারাপ ব্যবহার করার আগে একবার ভাবুন, আপনি যা করছেন তা আপনার শিশু শিক্ষা পাচ্ছে।
৩। বিচার
ভাল মন্দের মধ্যে পার্থক্য করাটা ছোটবেলায় শিক্ষা দিতে হবে। কোন অন্যায় করলে সেটা স্বীকার করতে শেখান। সরি বললে কেউ ছোট হয় না। তাই সন্তানকে সরি বলাটার শিক্ষা এখনই দেওয়া শুরু করুন।
৪। নম্রতা
নম্রতাকে আমরা অনেক হালকাভবে দেখে থাকি। কিন্তু এটিও জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। জীবনে সাফাল্যে দম্ভ না করে নম্র হতে শিক্ষা দিন। অন্যের কষ্ট বা ব্যর্থতায় খুশি না হয়ে তাকে সাহায্য করা উচিত। ক্ষমা চাওয়ার শিক্ষাটিও এই বয়সে দেওয়া উচিত।
৫। সাহায্য করা
একে অপরকে সাহায্য করার শিক্ষা দিন। এর শুরুটা নিজের ঘর থেকে করতে পারেন। ঘরে কাজে সন্তানকে সাহায্য করতে বলেন। সে এখন ছোট, পারবে না। এই চিন্তা করা বন্ধ করুন। তার সমান ছোট ছোট কাজগুলো তাকে করতে দিন।
৬। দায়িত্ববোধ
বিশ্বাস করুন আর নাই করুন, দায়িত্ববোধের শিক্ষাটি দেওয়ার উপযুক্ত সময় এই শিশুকাল। নিজের খেলনাগুলো গুছিয়ে রাখা, ময়লা কাপড়গুলো লন্ড্রির বাস্কেটে রাখা কিংবা ছোট ভাই বোনটিকে দেখে রাখা ইত্যাদি ছোট ছোট কাজগুলো তাকে করতে দিন। এই কাজগুলো তার মাঝে দায়িত্ববোধ সৃষ্টি করবে।
৭। শেয়ার করা
যত ছোট চকলেট হোক না কেন তা ছোট ভাই বোনের সাথে শেয়ার করার অভ্যাসটি ছোটবেলায় তৈরি করুন। এই ছোট শেয়ার করা তার মাঝে হিংসা সৃষ্টি হওয়া দূর করে দেবে।
৮। ভালোবাসা
বাবা মার কাছ থেকে সবচেয়ে বেশি যে শব্দটি একটি শিশু শুনে থাকে তা হল ভালোবাসি। ভালোবাসা শুধু নিজের পরিবারের জন্য নয় ভালোবাসা পথ শিশুটির জন্য, ভালোবাসা পশু পাখির জন্য, সব ভালো কিছুর জন্য ভালোবাসা। এই শিক্ষাটি দেওয়ার উপযুক্ত সময় এটি।

Post a Comment

 
Top