0
চলুন ঘুরে আসি ও দেখে আসি ভূস্বর্গ কাশ্মীর
ফটো সোর্স : www.google.com   চলুন ঘুরে আসি ও দেখে আসি ভূস্বর্গ কাশ্মীর
প্রকৃতির শক্তি অপ্রতিরোধ্য, এর সমকক্ষ কাউকেই আপনি খুঁজে পাবেন  না। বিশাল নদী, মহিমান্বিত পর্বত, ঘন অরণ্য ও গর্জনশীল ঝর্ণা এবং প্রকৃতির স্বাভাবিক সব কিছুই সুন্দর, রহস্যময় এবং পরাক্রমশালী। প্রকৃতির সংস্পর্শ আপনাকে উদ্দীপিত করবে, শান্ত করবে, এর সৌন্দর্য অন্বেষণের চ্যালেঞ্জ দিবে অথবা এর নির্মলতাকে উপভোগের জন্য আপনাকে অচেতন করবে। যদি আপনি প্রকৃতির অফুরন্ত সৌন্দর্য উপভোগ করতে চান তাহলে কাশ্মীর আপনার জন্য আদর্শ স্থান। কাশ্মীর ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যে অবস্থিত যার সৌন্দর্য বর্ণনাতীত। আপনাকে অভিবাদন জানাবে তুষারাবৃত পর্বত চূড়া, ছবির মত উপত্যকা, নির্মল হ্রদ, বিশাল বৃক্ষ এবং দোদুল্যমান পুষ্প। ট্র্যাকিং, ভেলায় চড়া ও ডিঙি নৌকায় চড়ার মত দুঃসাহসিক কাজ গুলো করার ও সুযোগ আছে এখানে। কাশ্মীর ভ্রমণের উপযুক্ত সময় হল মার্চ মাস থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত। কাশ্মীরের দর্শনীয় স্থানগুলো হল :
১। শ্রীনগর
কাশ্মীরের অবশ্য দর্শনীয় স্থান হচ্ছে শ্রীনগর। এটি ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের গ্রীষ্মকালীন রাজধানী। এটি ঝিলম নদীর তীরে অবস্থিত। শ্রীনগর ট্র্যাকিং, পাখি দর্শন, নৌকা চড়া এবং ওয়াটার স্কিইং এর জন্য সুপরিচিত। শ্রীনগরের জনপ্রিয় পর্যটন স্থান হচ্ছে ডাল লেক। এখানে আপনি বাসযোগ্য বজরায় থাকতে পারবেন এবং শিকারায় চড়তে পারবেন। আপনি দুঃসাহসিক অভিযাত্রী হন বা প্রিয়জনের সাথে মানসম্পন্ন সময় অতিবাহিত করতে চান যাই হোকনা কেন শ্রীনগর আপনার জন্য আদর্শ স্থান।
২। গুলমার্গ
কাশ্মীরের একটি অন্যতম দর্শনীয় স্থান হচ্ছে গুলমার্গ। এটিকে স্কিয়ারদের স্বর্গ বলা  হয়। মধ্য ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এখানে স্কিইং করা যায়। স্কিইং করা ছাড়াও অন্য আকর্ষণীয় যে কাজটি করা যায় তা হল গন্ডোলা ক্যাবল কারে চড়া। গুলমার্গে আছে পৃথিবীর সবচাইতে উঁচু গলফ কোর্স যা সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে ২৪০০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত।
৩। লেহ
ভারতীয় গ্রীষ্মের উত্তাপ থেকে মুক্তি পেতে চান যেসব পর্যটকেরা তাদের জন্য  স্বর্গোদ্যান হচ্ছে লেহ। এখানে আছে সুউচ্চ পর্বতমালা এবং এটি আল্পাইন হ্রদ দ্বারা পরিবেষ্টিত। এছাড়াও এখানে অপূর্ব সুন্দর কিছু স্থান যেমন- নুব্রা ভ্যালি, চৌম্বক পর্বত, টিক্সে মঠ, স্টক মঠ ও শান্তি বৌদ্ধস্তূপ আছে।
৪। কুপওয়ারা
কাশ্মীর ভ্রমণের জনপ্রিয় স্থান হচ্ছে কুপওয়ারা। চমৎকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য এটি উল্লেখযোগ্য। লোলাব উপত্যকা ও বঙ্গোজ উপত্যকা কুপওয়ারার প্রধান পর্যটক গন্তব্যস্থল। উন্নত তৃণ ভূমি, অ্যাল্পাইন পর্বত ও জলপ্রপাত এই স্থানের বৈশিষ্ট্য যা পর্যটকদের বার বার এই স্থানে যেতে বাধ্য করে।
৫। হেমিস
কাশ্মীরের একটি সুন্দর অপরিচিত স্থান হেমিস যা বন্যপ্রাণী ও মঠের জন্য বিখ্যাত। জম্মু ও কাশ্মীরের লেহ জেলার একটি ছোট গ্রাম হল হেমিস যা লেহ থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এই স্থানটি হেমিন্স আশ্রমের জন্য সুপরিচিত যা ১৮৭২ খ্রিষ্টাব্দে রাজা Senge Nampar Gyalva  নির্মাণ করেন। আপনি যদি বন্যপ্রাণীর বিষয়ে উৎসাহিত হয়ে থাকেন তাহলে হেমিস ন্যাশনাল পার্কে যেতে পারেন কিছু দুর্লভ প্রজাতির প্রাণী যেমন- তুষার চিতা ও নীল ভেড়া দেখতে পাবেন।
৬। সোনমার্গ
এটি স্বর্ণের উপত্যকা নামে বিখ্যাত। অত্যাশ্চর্য ফুলের অবিরাম প্রবাহ এবং তরঙ্গিত ট্র্যাকিং রুটস সোনমার্গ এর বৈশিষ্ট্য। সম্মোহিত পরিমণ্ডল ও উত্তেজনাপূর্ণ দৃশ্য এই অঞ্চলের পর্যটকদের জন্য আদর্শ স্থান।     
এছাড়াও সুফিদের শহর কাঠুয়া, পুলওয়ামা, পাহালগাম, রাজাউরি, কারগিল ইত্যাদি স্থানগুলোতেও ঘুরে আসতে পারেন। কাশ্মীরের কিছু দর্শনীয় বাগান হচ্ছে মোগল গার্ডেন, ইন্দিরা গান্ধী টিউলিপ গার্ডেন ও প্যারী মহল।    

Post a Comment

 
Top